1. [email protected] : admin :
  2. [email protected] : গোলাম সরোয়ার মেহেদী : গোলাম সরোয়ার মেহেদী বরিশাল ব্যুরো প্রধান
  3. [email protected] : সাখাওয়াত হোসেন সাকা চট্রগ্রাম ব্যুরো প্রধান : সাখাওয়াত হোসেন সাকা চট্রগ্রাম ব্যুরো প্রধান
  4. [email protected] : রাকিব হাসান হাকন্দ ঢাকা ব্যুরো প্রধান : রাকিব হাসান হাকন্দ ঢাকা ব্যুরো প্রধান
  5. [email protected] : স্টাফ রিপোর্টারঃ : স্টাফ রিপোর্টারঃ
  6. [email protected] : জুবায়ের চৌধুরী কাজল ফরিদপুর ব্যুরো প্রধান : জুবায়ের চৌধুরী কাজল ফরিদপুর ব্যুরো প্রধান
  7. [email protected] : সম্রাট শাহ খুলনা ব্যুরো প্রধান : সম্রাট শাহ খুলনা ব্যুরো প্রধান
  8. [email protected] : শাহ্ জামাল ময়মনসিংহ ব্যুরো প্রধান : শাহ্ জামাল ময়মনসিংহ ব্যুরো প্রধান
  9. [email protected] : আমজাদ হোসেন রাজশাহী ব্যুরো প্রধান : আমজাদ হোসেন রাজশাহী ব্যুরো প্রধান
  10. [email protected] : এম এ সালাম রুবেল রংপুর ব্যুরো প্রধান : এম এ সালাম রুবেল রংপুর ব্যুরো প্রধান
শনিবার, ২৪ অক্টোবর ২০২০, ০৩:২৭ পূর্বাহ্ন
শিরোনামঃ

চীনা পণ্যে যুক্তরাষ্ট্রের শুল্ক আরোপ, বাণিজ্য নীতিমালার লঙ্ঘন

রিপোর্টার
  • আপডেট : বুধবার, ১৬ সেপ্টেম্বর, ২০২০
  • ১৮ বার দেখা হয়েছে

চীনা পণ্যে যুক্তরাষ্ট্রের শুল্ক আরোপ, বাণিজ্য নীতিমালার লঙ্ঘন

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : চীনা পণ্যে শুল্ক আরোপ করে ট্রাম্প প্রশাসন বাণিজ্য নীতিমালা লঙ্ঘন করেছে বলে উল্লেখ করেছে বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থা (ডব্লিউটিও)। সংস্থাটির তিন সদস্যের বিশেষজ্ঞ একটি প্যানেল এ বিষয়ে চীনের পক্ষেই রায় দিয়েছে।
সেখানে বলা হয়েছে, ২০১৮ সালে চীনা পণ্যের উপর শুল্ক আরোপের সময় যুক্তরাষ্ট্র আন্তর্জাতিক নিয়ম ভঙ্গ করেছে। যুক্তরাষ্ট্রের এমন পদক্ষেপ বাণিজ্য যুদ্ধের সূচনা করেছে বলেও সংস্থাটির পক্ষ থেকে উল্লেখ করা হয়েছে। রায়ে বলা হয়েছে, চীনের ওপর মার্কিন নিষেধাজ্ঞা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য সংস্থার নীতিমালার বিরোধী।
ডব্লিউটিও বলছে, চীনের ওপর অন্যায়ভাবে প্রযুক্তি চুরির যে অভিযোগ এনে শুল্ক আরোপ করা হয়েছিল তার পক্ষে ন্যায়সংগত কোনো প্রমাণ দেখাতে পারেনি যুক্তরাষ্ট্র। বাণিজ্য সংস্থার এই রায়কে স্বাগত জানিয়েছে চীন। তবে যুক্তরাষ্ট্র বলেছে যে, ডব্লিউটিও আসলে চীনকে মোকাবিলা করার জন্য একেবারেই প্রস্তুত না।
এদিকে, বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থায় যুক্তরাষ্ট্রের শীর্ষ প্রতিনিধি রবার্ট লিটজার বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্রকে অবশ্যই অন্যায্য বাণিজ্য পদ্ধতির বিরুদ্ধে নিজেকে রক্ষা করার জন্য অনুমতি দিতে হবে।
তিনি আরও বলেন, গত চার বছর ধরে ট্রাম্প প্রশাসন চীনের ক্ষতিকারক প্রযুক্তির অনুশীলন বন্ধ করার বিষয়ে কথা বলে আসছে। তারপরেও ডব্লিউটিও চীনের পক্ষেই রায় দিয়েছে।
রবার্ট লিটার আরও বলেন, চীনের মেধাস্বত্ব চুরির বিষয়ে যুক্তরাষ্ট্র যে তথ্য প্রমাণ দিয়েছে সে বিষয়ে বিতর্কে যায়নি ডব্লিউটিও। তাদের এমন সিদ্ধান্ত থেকেই বোঝা যায় যে, সংস্থাটি এ ধরনের অন্যায়ের কোনো সমাধান দিতে পারবে না।
২০১৮ সালে ট্রাম্প প্রশাসন প্রথম ধাপে শুল্ক আরোপের পর ডব্লিউটিওর কাছে যুক্তরাষ্ট্রের বিরুদ্ধে মামলা করে চীন। পরবর্তীতে তা ৩০০ বিলিয়ন ডলারের বেশি পণ্য পর্যন্ত চলে যায়। ওই অভিযোগে ২০১৮ সালের জুন এবং সেপ্টেম্বরে প্রণীত ২০০ বিলিয়ন ডলার পণ্যে যে শুল্ক আরোপ করা হয়েছিল তার বিরুদ্ধে চ্যালেঞ্জ জানায় চীন।

Please Share This Post in Your Social Media

এই বিভাগের আরো সংবাদ
© ২০২০ দৈনিক শিরোমনি